ঢাকা বুধবার, ১৪ই এপ্রিল ২০২১, ২রা বৈশাখ ১৪২৮


প্রাকৃতিক ‘হ্যান্ড স্যানিটাইজার’ তৈরিতে তেজগাঁও কলেজের সাফল্য


প্রকাশিত:
১৭ মার্চ ২০২০ ২২:৪০

আপডেট:
১৭ মার্চ ২০২০ ২২:৫৭

সংগৃহীত

করোনা আতঙ্কে সারাদেশ। প্রাণঘাতী এ ভাইরাস রোধে স্যানিটাইজারের বিকল্প নেই। দেশে করোনারোগী শনাক্তের পর পরই হ্যান্ড স্যানিটাইজারের দাম বেড়ে যায় বহুগুণে। এ বিষয়টি মাথায় রেখে রাজধানীর তেজগাঁও কলেজের প্রাণরসায়ন ও অনুপ্রাণ বিজ্ঞানের শিক্ষার্থীরা আবিষ্কার করলো প্রাকৃতিক হ্যান্ড স্যানিটাইজার। যার নাম দেয়া হয়েছে ‘বায়োকেম হ্যান্ড স্যানিটাইজার’।

প্রভাষক কামরুল হাসানের সহযোগিতায় ও প্রাণরসায়ন ও অনুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের তরুণ শিক্ষক মোহাম্মদ শরীফুল ইসলামের তত্ত্বাবধানে কয়েকজন উদ্যমী ও গবেষণাপাগল শিক্ষার্থীদের নিয়ে এ প্রাকৃতিক হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরি করা হয়। প্রাথমিকভাবে এটার নাম দেয়া হয় ‘বায়োকেম হ্যান্ড স্যানিটাইজার’। এতে রয়েছে ৭০% আইসোপ্রোপাইল অ্যালকোহল, প্রাকৃতিক অ্যালোভেরা ও এসেনসিয়াল ওয়েল।

এ বিষয়ে তেজগাঁও কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক আব্দুর রশীদ বলেন, এটা আমাদের কলেজের জন্য বড় একটা অর্জন। আমি পুরো টিমকে ধন্যবাদ জানাই। আগামীতে তারা আরও ভালো কিছু করবে বলেও তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

শিক্ষার্থীদের এমন অর্জনে কলেজের উপাধ্যক্ষ (প্রশাসন ও একাডেমিক) অধ্যাপক হারুন-অর-রশীদ বলেন, আমাদের কলেজের প্রাণরসায়ন বিভাগ আন্তর্জাতিক মানের। গবেষনাধর্মী এ বিভাগে কলেজ প্রশাসন আন্তর্জাতিক মানদণ্ডের একটা গবেষনাগার তৈরি করেছে। কাজেই এ হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরি আমরা ডিজার্ব করি। বাজেটের ব্যবস্থা করে এটাকে আরও বড় পরিসরে কিভাবে নিয়ে যাওয়া যায় সেটাও প্রশাসনের ভাবনায় আছে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

তেজগাঁও কলেজের শিক্ষার্থীরা

এ বিষয়ে প্রাণরসায়ন ও অনুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক মোরশেদ আলম বলেন, অনেক সীমাবদ্ধতার মাঝেও যে আমার বিভাগের দু’জন শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরি করেছে। ব্যক্তিগতভাবে আমি খুব খুশি। এরসঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

মোরশেদ আলম আরো বলেন, আর্থিক ও অন্যান্য সব ধরনের সহযোগিতা পেলে আমরা আরও বড় পরিসরে তৈরি করে কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মাঝে বিনামুল্যে আমাদের তৈরি হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ করতে পারব।




আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top